অনলাইন ডেস্কঃ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব) এবং এই ফোর্সটির সাবেক-বর্তমান সাত কর্মকর্তার ওপর দেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা কোনো শাস্তি নয় বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত পিটার হাস।

মার্কিন দূত বলেন, ‘এই বাহিনীর সদস্যদের আচরণ পরিবর্তনের এই নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। শিগগিরই এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হবে না। আমরা আশা করছি, র‌্যাবের আচরণ পরিবর্তন হবে।’

ঢাকার গুলশানে বৃহস্পতিবার সেন্টার ফর গর্ভন্যান্স স্টাডিজ—সিজিএস আয়োজিত ‘মিট দ্য অ্যাম্বাসেডর’ অনুষ্ঠানে একথা বলেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত। সিজিএসের নির্বাহী পরিচালক জিল্লুর রহমান অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি। এই নিষেধাজ্ঞা শিগগিরই প্রত্যাহার হবে না। তবে বাহিনীতে সংস্কার আনা হলে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি বিবেচনা করবে যুক্তরাষ্ট্র।’

‘নিরাপত্তা সহযোগিতার অংশ হিসেবে বাংলাদেশের বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে যুক্ত রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। কাজ করছে। আমরা আশা করছি, র‍্যাবের আচরণ পরিবর্তন হবে’—যোগ করেন পিটার হাস।

ইন্দো প্যাসিফিক কৌশল—আইপিএস নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আইপিএসে বাংলাদেশের যোগ দেওয়া না দেওয়া কোনো বিষয় নয়। কেননা এটা একটি নীতি। বাংলাদেশ সেটা কিভাবে নেয় সেটাই দেখার বিষয়।’

 

Bangladeshpost24.com

Previous articleব্রাজিলের আমাজন রাজ্যে সেতু ধসে নিহত ৩, নিখোঁজ ১৫
Next articleএকটু কষ্ট হবে, কম খাবঃ খাদ্যমন্ত্রী