ছবি: সংগৃহীত
বাংলায় সংবাদ 🔊

অনলাইন ডেস্কঃ দেশের বিদ্যুৎ ও জ্বালানির অর্জন, প্রত্যাশা ও চ্যালেঞ্জসহ স্বার্থ সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় নিয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

মঙ্গলবার (২০শে সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বিশ্বব্যাংকের সাউথ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট মার্টিন রাইসার সঙ্গে ওই দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় স্থান পায়।
প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটকে মানসম্পন্ন ও আন্তর্জাতিক মানের করতে বিশ্বব্যাংকের সহযোগিতা কামনা করে বলেন, সক্ষমতা বৃদ্ধি, বায়ু বিদ্যুৎ, সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থায় বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে অংশীদারিত্ব আরও বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।

বৈঠকে নবায়নযোগ্য জ্বালানি, ক্যাপটিভ পাওয়ার, জলবায়ু পরিবর্তন, বৈশ্বিক জ্বালানি সংকট, সোলার ইরিগেশন পাম্প, লিথিয়াম ব্যাটারি, জলবিদ্যুৎ, আঞ্চলিক পাওয়ার ট্রেড, নেট মিটারিং ও রুফটপ সোলার, গ্রিন বিল্ডিং, বিদ্যুৎ এবং জ্বালানি দক্ষ ও সাশ্রয়ী ব্যবহার ছাড়াও তেল রিফাইনারি, ল্যান্ড বেজড এলএনজি টার্মিনাল ইত্যাদি বিষয় নিয়েও পর্যালোচনা করা হয়। এ সময় প্রতিমন্ত্রী প্রকল্পের অর্থায়নে অযথা সময়ক্ষেপণ না করতে বিশ্বব্যাংককে অনুরোধ করেন।
পরে বিশ্বব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করতে পারায় আনন্দ প্রকাশ করে বলেন, দক্ষতা, উন্নয়ন, আঞ্চলিক সহযোগিতা ও সঞ্চালনের ওপর ফোকাস খুবই আশাব্যঞ্জক। নবায়নযোগ্য জ্বালানির সম্প্রসারণ এবং সম্ভাবনার নতুন নতুন ক্ষেত্র অন্বেষণ বাংলাদেশকে উজ্জ্বলতর করছে। দক্ষতা বৃদ্ধি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও পাওয়ার ট্রেড সংশ্লিষ্ট বিষয়ে এ সময় বিশ্বব্যাংকের আগ্রহের কথা জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গ্যাস মিটার সংক্রান্ত দুটি প্রকল্প বিশ্বব্যাংকে অনুমোদিত হয়েছে, যা ২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে শুরু হবে। এছাড়াও বিদ্যুৎ খাতে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে ছয়টি প্রকল্পও চলমান রয়েছে।

 

 

Bangladeshpost24.com

Previous articleবন্যা বিপর্যস্ত পাকিস্তানে অ্যাঞ্জেলিনা জোলি
Next articleমিয়ানমারের গোলা নিক্ষেপ, ‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’ বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী