বাংলায় সংবাদ 🔊

অনলাইন ডেস্কঃআগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে বিএনপি যে মুহূর্তে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ার লক্ষ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে ধারাবাহিক বৈঠক করছে, ঠিক তখনই বিএনপির পুরোনো ও নতুন মিত্র মিলিয়ে মোট সাতটি দল ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’ নামে পৃথক রাজনৈতিক মোর্চার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিল।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে নতুন এ জোটের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব।

সরকার পতনের আন্দোলন জোরদারের লক্ষ্যে জাতীয় ঐক্য গড়তে আত্মপ্রকাশ করা গণতন্ত্র মঞ্চে জেএসডি ছাড়াও রয়েছে নাগরিক ঐক্য, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, গণসংহতি আন্দোলন, গণঅধিকার পরিষদ, ভাসানী অনুসারী পরিষদ ও রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন।

এর মধ্যে তিনটি বিএনপির পুরোনো মিত্র এবং চারটি নতুন মিত্র। গণতন্ত্র মঞ্চের শরিকদের মধ্যে পাঁচটি রাজনৈতিক দল; সেগুলো হল-জেএসডি, নাগরিক ঐক্য, গণসংহতি আন্দোলন, গণঅধিকার পরিষদ ও বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি। আর গণস্বাস্হ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন ‘ভাসানী অনুসারী পরিষদ’ এবং হাসনাত কাইয়ূমের নেতৃত্বাধীন ‘রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন’ রাজনীতি-মিশ্রিত হালআমলের সংগঠন।

আ স ম রবের নেতৃত্বাধীন ‘জেএসডি’ ও মাহমুদুর রহমান মান্নার নেতৃত্বাধীন ‘নাগরিক ঐক্য’ বিএনপিকে মূল শক্তি ধরে গণফোরামের ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে গড়ে ওঠা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক ছিল। ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট বর্তমানে বিলুপ্ত। ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা ড. কামাল হোসেন সম্প্রতি সংবাদ সম্মেলন করে বলেছেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট অকার্যকর, এটি আর নেই’। আর বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন কয়েক দিন আগে বলেছেন, ‘গত নির্বাচনে ড. কামালকে ইমাম মানা ছিল বড় ভুল সিদ্ধান্ত’।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ও গণসংহতি আন্দোলন ‘বাম গণতান্ত্রিক জোট’ ছেড়ে আসা দুটি দল। গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক ড. রেজা কিবরিয়াও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক গণফোরাম থেকেই গত বার ‘ধানের শীষ’ প্রতীকে নির্বাচন করেছিলেন। রেজা কিবরিয়া সম্প্রতি ছাত্রঅধিকার সংরক্ষণ পরিষদের সাবেক নেতা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরকে নিয়ে ‘গণঅধিকার পরিষদ’ নামে নতুন দল গড়েন। ‘ভাসানী অনুসারী পরিষদ’ ও ‘রাষ্টÌ সংস্কার আন্দোলন’ গত কয়েক বছর ধরে বিভিন্ন আন্দোলনে গণঅধিকার পরিষদের সঙ্গী ছিল।

bangladeshpost24.com

Previous articleকঠোর আন্দোলন চাইলেন স্থায়ী কমিটির দুই সদস্য; সংকটের দায় সরকারের দাবি মির্জা ফখরুলের
Next articleট্রাম্পের বাসায় এফবিআইয়ের তল্লাশি