Bangladeshpost24.com
ছবি: সংগৃহীত

অনলাইন ডেস্কঃ অনেকেই রাতে ফোন চার্জে বসিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। তখন ফোন শতভাগ চার্জ হয়েও চার্জে থাকে। দিনের পর দিন এই কাজটি করলে আপনার ফোনের ক্ষতি হয়।

এই বিষয়ে বুঝতে লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি সম্পর্কে জানতে হবে। প্রায় সব স্মার্টফোনেই এই ধরনের ব্যাটারি ব্যবহার হয়। লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারির একটি নির্দিষ্ট চার্জ সাইকেল থাকে। ব্যাটারি সম্পূর্ণ ডিসচার্জ হওয়ার পরে ফের চার্জ হওয়া একটি চার্জ সাইকেল। প্রত্যেকবার ফোনের ব্যাটারি সম্পূর্ণ চার্জ হওয়ার ফলে কমতে থাকে স্বাস্থ্য ও আয়ু। যত বেশি চার্জ সাইকেল অতিক্রান্ত হবে ততই কমবে ফোনের ব্যাক আপ। এই ভাবে ধীরে ধীরে মোবাইল ফোনে ব্যাটারি ব্যাক আপ কমতে থাকে।

ফোনের ব্যাটারি ১০০ শতাংশ হওয়ার পরেও চার্জার কানেক্ট করে রাখতে রাতারাতি ফোনের ব্যাটারির ক্ষত হবে না। কিন্তু দিনের পর দিন এই অভ্যাস বজায় রাখলে ধীরে ধীরে কমতে থাকবে ব্যাটারির আয়ু। কারণ ১০০ শতাংশ হওয়ার পরেও ফোন চার্জার না খুললে ব্যাটারি ক্রমাগত চার্জ হতে থাকবে। এই প্রক্রিয়ার নাম ‘ট্রিকল চার্জিং’। এর ফলে একদিকে যেমন কমবে ব্যাটারি আয়ু অন্যদিকে গরম হবে ফোনের ব্যাটারি। যা দিনের পর দিন চলতে থাকলে ব্যাটারির আয়ু অনেকটা কমে যাবে।

এই কারণেই একবার ফোনের ব্যাটারি ১০০% চার্জ হয়ে যাওয়ার পরে চার্জার খুলে নেওয়া উচিত। সব সমস্যার সমাধানে স্মার্ট প্লাগ ব্যবহার করতে পারেন। ঘরে স্মার্ট চার্জার না থাকলে চার্জিংয়ের সময় ‘লো পাওয়ার মোড’ এনেবেল করে রাখতে পারেন।

একই সঙ্গে জেনে রাখা প্রয়োজন ফোনের ব্যাটারি ১০০% চার্জ হয়ে যাওয়ার পরেও চার্জার না খুলে নিলে বিদ্যুৎ অপচয় হতে থাকে। যার প্রভাব মাসের শেষে ইলেকট্রিক বিলে দেখতে পাবেন।

এক কথায় ব্যাটারি ১০০% হওয়ার পরেও চার্জার না খুললে রাতারাতি আপনার ফোনের ব্যাটারি খারাপ হবে না। কিন্তু রোজ এই অভ্যাস চালিয়ে গেলে কয়েক মাস পর থেকেই কমতে শুরু করবে ব্যাক আপ। আর এই কারণেই ফোন ফুল চার্জ হলে চার্জার বন্ধ করা উচিত। তবে চাইলে ৮০-৯০% চার্জ হওয়ার পরেও আনপ্লাগ করতে পারেন চার্জার। এই অভ্যাস বজায় রাখলে ব্যাটারির আয়ু আরও বাড়বে।

Bangladeshpost24.com

Previous articleগাড়ি-বাড়ির বদলে প্রেমিকা হওয়ার প্রস্তাব নোরাকে
Next articleঅস্ত্র ব্যবসায়ী সঞ্জয় ভান্ডারিকে ভারতে আনা সহজ হলো