বাংলাদেশ পোষ্ট ২৪ ডটকম: আর্মেনিয়ার রাজধানী ইয়েরেভানে বিক্ষোভের সময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন কয়েক ডজন। পুলিশ বলছে, ৩৪ জন অফিসারসহ ৫০ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে ১১ জনকে।

আরটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শুক্রবার প্রতিবেশী আজারবাইজানের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের দাবিতে দেশটির বিরোধী জোট এই বিক্ষোভ শুরু করে। এ সময় পুলিশ হস্তক্ষেপ করলে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়।

পুলিশ বলছে, বিক্ষোভকারীরা প্রধান সরকারি ভবনে মিছিল নিয়ে এসে প্রায় ২ ঘণ্টা অবরোধ করে রাখে। এ সময় বিক্ষোভকারীরা পুলিশের দিকে ঢিল ছোঁড়ে।

চলমান বিক্ষোভটি শুরু হয়েছে এপ্রিলের শেষের দিকে। আন্দোলনকারীরা সে সময় সরকারি ভবনের বাইরে ক্যাম্প করে অবস্থান করতে থাকে। শুক্রবারের বিক্ষোভে তারা আবারও প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ানকে বিশ্বাসঘাতক হিসেবে আখ্যায়িত করে তাকে পদত্যাগের আহ্বান জানিয়েছেন।

বিরোধী দলগুলোর দাবি ছিল পার্লামেন্ট একটি ঘোষণা গ্রহণ করুক যে নাগর্নো-কারবাখ কখনই আজারবাইজানের অংশ হবে না। এই দাবির মুখে পাশিনপন্থি আইন প্রণেতারা সংসদে যোগদানে অস্বীকার করেন।

বিক্ষোভকারীরা ঘোষণা দিয়েছেন, শনিবার সন্ধ্যায় নতুন বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হবে।

১৯৯০ এর দশকে সশস্ত্র সংঘাতের পর নাগর্নো-কারাবাখ অঞ্চল আর্মেনিয়ার সঙ্গে যুক্ত হয়। ২০২০ সালে আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার মধ্যে ৪৪ দিনের এক যুদ্ধে নাগার্নো কারাবাখের একটি বড় অংশ দখল করতে সক্ষম হয় আজারবাইজান।

পরে রুশ মধ্যস্ততায় দুই দেশের যুদ্ধ শেষ হয় এবং রুশ শান্তিরক্ষীদের সীমান্ত এলাকায় মোতায়েন করা হয়।

bangladeshpost24.com

Previous articleসীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ
Next articleম্যাক্রোঁ’র বক্তব্যে ক্ষুব্ধ ইউক্রেন