বাংলাদেশ পোষ্ট ২৪ ডটকম: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, নিরাপত্তার স্বার্থে এখন আমরা বিগ টেক, রেড টেক এবং ডিপ টেক প্রযুক্তির হস্তক্ষেপ করার অনুমতি দিতে চাই না। আমাদের রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সাইবার স্পেস সুরক্ষা করতে ৪টি স্তম্ভর ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশ কাজ করছে।

বুধবার (২৭ এপ্রিল) ভারতের নয়াদিল্লির তাজ প্যালেসের দরবার হলে রাইসিনা সংলাপ উপলক্ষে এক প্যানেল আলোচনায় এ আহ্বান জানান তিনি।

পলক বলেন, বাংলাদেশ ডিজিটাল প্রোটেকশন আইন তৈরি করছে। এখন একে অপরের সঙ্গে প্রতিযোগিতার সময় নয়, সহযোগিতার সময়। বৈশ্বিক অন্তর্ভুক্তিমূলক অংশগ্রহণের মাধ্যমে আমাদের নাগরিকদের অধিকার সুরক্ষার পাশাপাশি সাইবার স্পেসে অর্থনীতিকে সুরক্ষা দিতে পারবো। নতুন ও উদীয়মান প্রযুক্তি উদ্ভাবন করার জন্য আমাদের একে অপরকে সহযোগিতা করা উচিত। এর মাধ্যমে নাগরিকদের উন্নত জীবন দেওয়া সম্ভব।

নাগরিকদের ডাটা ও প্রাইভেসি সুরক্ষার জন্য জাতিসংঘের অধীনে গ্লোবাল ইন্টারনেট গভর্নেন্স কাউন্সিল ও ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি নির্দেশিকা প্রণয়নের আহবান জানান তিনি।

ভারতের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র উপদেষ্টা কাঞ্চন গুপ্তের সঞ্চালনায় প্যানেল আলোচনায় অন্যান্যের মধ্যে অংশগ্রহণ করেন ভারতের ইলেকট্রনিক্স এবং তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী রাজীব চন্দ্রশেখর, যুক্তরাষ্ট্রের সাইবার এবং ইমার্জিং টেকনোলজির ডেপুটি ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাডভাইজার অ্যান নিউবার্গার, জেনারেল অটোমিকস গ্লোবাল করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী বিবেক লাল, টেকনোলজি অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স প্রোগ্রামের প্রতিনিধি ইভন নানজিরা সাম্বুলি।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ এপ্রিল রাইসিনা ডায়ালগ শুরু হয়। রাইসিনা ডায়ালগ হচ্ছে একটি বহুপাক্ষিক ফ্ল্যাগশিপ সম্মেলন। এই ডায়ালগ আন্তর্জাতিক ভূ-রাজনীতি এবং ভূ-অর্থনীতির বিষয়ে ২০১৬ সাল থেকে প্রতি বছর ভারতের নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ডায়ালগে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান, মন্ত্রী, বেসরকারি খাতের প্রধান নির্বাহী এবং স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন বৈশ্বিক নীতিনির্ধারকরা অংশ নেন।

bangladeshpost24.com

Previous articleকান উৎসবের বিচারক দীপিকা
Next articleশিমুলিয়া ঘাটে ঘরমুখো মানুষের চাপ