অনলাইন ডেস্কঃ দেশের যত সংকট তার দায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের; এর জন্য তাদের একদিন জবাবদিহি করতে হবে। হত্যা-নির্যাতন-গুম ছাড়া বিকল্প কোন পথ নেই জেনে সরকার এই পথে চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সোমবার জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি ও ভোলায় জেলা ছাত্রদল সভাপতি নূরে আলম ও স্বেচ্ছাসেবক দল কর্মী আব্দুর রহিমকে হত্যার প্রতিবাদে রাজধানীর নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয়তাবাদী যুবদল আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি মহাসচিব  এসব কথা বলেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন সারাদেশে অত্যাচার নির্যাতন চালিয়ে সরকার ক্ষমতায় টিকে আছে। হত্যা-নির্যাতন-গুম-খুন ছাড়া বিকল্প পথ নেই জেনেই সরকার এই পথে চলছে। সরকার টিকে আছে মিথ্যার ওপর জনগণের সাথে প্রতারণা করে। দেশের সব সংকটের মূলে সরকারের দুর্নীতি। সংকটের সব দায় আওয়ামীলীগকে নিতে হবে এবং এর জন্য তাদের জবাবদিহি করতে হবে বলে মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব।

এসময় জ্বালানি তেলসহ নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি, বর্ধিত বাস ভাড়া ও ভোলায় গুলি করে দলের নেতা-কর্মী হত্যার প্রতিবাদে ১১ ই আগষ্ট ঢাকা মহানগরে দলীয় কার্যালয়ের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ ও ১২ ই আগষ্ট সারাদেশের মহানগর ও উপজেলায় প্রতিবাদ সমাবেশের ঘোষণা করেন বিএনপি মহাসচিব।

বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন জ্বালানীর দাম বৃদ্ধির ভার জনগন বইতে পারবে না। নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় এবং প্রেসক্লাবের সীমানার গণ্ডি পেরিয়ে বিএনপি মহাসচিবকে কর্মসূচি দেয়ার আহ্বান জানান মির্জা আব্বাস। হরতাল অবরোধের কঠোর কর্মসূচি না দিলে এই সরকারের পতন সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।  সরকার রাতের আধারে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি যেভাবে করেছে সেভাবে ডলার পাচার করেছে আবার মানুষের পকেটও কাটছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

ফ্যাসিবাদী জালিম সরকারকে নামাতে হলে শুধু সভা সমাবেশ নয় আন্দোলন সংগ্রামে দলকে কার্যকর ভূমিকা নিতে হবে বলে মনে করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। যেমন কুকুর তেমন মুগুর আন্দোলন না দিলে সরকার সরকারের জায়গায়ই থাকবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। এসময় আন্দোলন সংগ্রামে কঠোর কর্মসূচিতে যেতে বিএনপি মহাসচিবকে তাগিদ দেন গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। আন্দোলনের কর্মসূচি জাতির সামনে তুলে ধরারও আহ্বান জানান তিনি।

বিক্ষোভ সমাবেশে জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় উল্লেখ করে সরকার আগামী নির্বাচনও নিশিরাতে করতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম। শেখ হাসিনা জনগণ ও বিএনপিকে ভয় পায়; আগামীতে এই সরকারকে মধ্য রাতেই পালাতে হবে বলে মন্তব্য করেন আব্দুস সালাম। সাধারণ মানুষ হরতাল চাইলেও যেহেতু সরকার দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দিয়েছে তাই এমন কর্মসূচি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দিচ্ছে না বলেও জানান তিনি।

সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলেই রাতের আধারে তেলের দাম, বাসের ভাড়া বাড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ  আমান।

দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতিতে যখন মানুষের অনুভূতি ভোতা হয়ে গেছে তখন বিনা ভোটের প্রতিনিধিদের মন্ত্রী বানিয়ে সরকার জনগণের সাথে মশকরা করছে বলে মন্তব্য করেন দলটির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। বলেন বর্তমান সরকার মিথ্যা কথা ও প্রতারণার সরকার।

 

 

Bangladeshpost24.com

Previous articleইউরোপে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ
Next articleবিএনপির ৭ মিত্র গড়লো ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’