অনলাইন ডেস্কঃ ইডেন মহিলা কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সহসভাপতি জান্নাতুল ফেরদৌসকে ‘হেনস্থা ও মারধরের’ ঘটনায় যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, তাদের পাল্টা সংবাদ সম্মেলসে মারামারিতে জড়িয়েছে দুই পক্ষ।

রোববার বিকালে শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রীনিবাসের সামনে দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও মারামারিতে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

শহীদ বঙ্গমাতা ছাত্রী নিবাসের শিক্ষার্থীরা জানান, কলেজ শাখার সহসভাপতি জান্নাতুল জান্নাতুল ফেরদৌস গত ২২ সেপ্টেম্বর সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রীভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানার বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে ‘সিট বাণিজ্য, চাঁদাবাজি’সহ নানা অভিযোগ নিয়ে কথা বলেন।

এর জেরে শনিবার রাত ১১টার দিকে জান্নাতকে ছাত্রীনিবাস থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেন রীভা ও রাজিয়ার অনুসারীরা। পরে তাকে একটি কক্ষে আটকে রেখে ‘হেনস্তা’ করা হয়। এ নিয়ে হট্টগোলের পর জান্নাতকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ ঘটনায় মধ্যরাতে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের একাংশের বিক্ষোভে ইডেন কলেজ ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভকারীরা রীভা ও রাজিয়ার বহিষ্কারের দাবি জানান।

কলেজ ছাত্রলীগের ওই অংশ রোববার দুপুরে শহীদ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ছাত্রীনিবাসের সামনে সংবাদ সম্মেলন করে সভাপতি রীভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়াকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সভাপতি তামান্না জেসমিন রীভা এবং সম্পাদক রাজিয়া সুলতানার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা না নিলে গণপদত্যাগেরও হুঁশিয়ারি আসে সংবাদ সম্মেলন থেকে।

সহসভাপতি সুস্মিতা বাড়ৈ সেখানে বলেন, “আমরা ইডেন কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি তামান্না জেসমিন রীভা ও সাধারণ সম্পাদক রাজিয়া সুলতানাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করছি। সেই সঙ্গে ছাত্রলীগের গঠিত তদন্ত কমিটিকে আমরা মানি না। রীভা ও রাজিয়াকে বহিষ্কার করে তদন্ত করতে হবে।”

এরপর বিকালে বঙ্গমাতা ছাত্রীনিবাসের সামনে পাল্টা সংবাদ সম্মেলনে আয়োজন করেন রীভা ও রাজিয়ার সমর্থকরা।কিন্তু সেখানে সংবাদ সম্মেলনের সময় উপস্থিত হন এই কলেজ শাখার সহ-সভাপতি সুস্মিতা বাড়ৈ, জান্নাতুল ফেরদৌসসহ অন্যান্য নেত্রীরা। তখন সংঘর্ষ শুরু হয় দুই পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে।

 

Bangladeshpost24.com

Previous articleটস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
Next articleসেনাবাহিনীতে যুক্ত হলো দ্বিতীয় কাসা-সি ২৯৫ ডব্লিউ সামরিক বিমান